Breaking News

বাড়ি থেকে জোর করে বিয়ে দিয়ে দিচ্ছিলো, বাড়ির বিরুদ্ধে গিয়ে বিনা কোচিংয়ে আজ তিনি যেভাবে IAS অফিসার

হরিয়ানার গুরুগ্রামের বাসিন্দা নিধি সিওয়াচ, আরও একবার প্রমান করলেন মেয়েরা কখনোই পিছিয়ে নেই। ইউ.পি.এস.সি প্রস্তুতির জন্য নেটে ছ’মাস তিনি নিজেকে একটি ঘরে বন্দী করে রাখেন। এরপর, যখন তিনি আই.এ.এস হন, তখন প্রথমে তার পরিবারের সদস্যদের চিন্তার অবসান ঘটে এবং হরিয়ানার একটি মেয়ে তার উদাহরণ হয়ে ওঠে,

যার চিন্তা ভাবনা শুধুমাত্র মেয়েদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। নিধি প্রমাণ করেছেন যে, একবার সফল হওয়া যথেষ্ট নয়। আপনি যদি চান, আপনি আবার চ্যালেঞ্জ নিতে পারেন এবং আবার জিততে পারেন। নিধি সিওয়াচ, যখন গুরুগ্রামে দশম শ্রেণি পাশ করেন, তখন তিনি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং করার কথা বলেছিলেন।

তখন সবাই অবাক হয়ে গেছিল কারণ, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বেশিরভাগ ছেলেরাই করে, কিন্তু সে একটি মেয়ে ছিল। যদিও নিধি এই ডিগ্রী অর্জন করার পর একটি চাকরি করতো, কিন্তু তারপর তিনি বুঝতে পারলেন যে ক্ষেত্রটি তার জন্য নয় তিনি এর থেকে আরো ভালো পেতে পারেন।

তাই তিনি চাকরি ছেড়ে দিয়ে মন প্রাণ দিয়ে ইউ.পি.এস.সি-র জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করে। মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ হওয়ার পর, মেয়ের চাকরি প্রত্যাখ্যান পরিবার পছন্দ করেনি এবং নিধি যখন ইউ.পি.এস.সি-তে ফেল করেছিলেন, তখন তার পরিবারও তার সাথে ছিল না।

তার পরিবারের সদস্যরা তাকে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিল যে, হয় সে নিজের চেষ্টায় আইএস অফিসার হবে, নাহলে পরিবারের ইচ্ছা মত পাত্রকে বিয়ে করবে। বাড়ির বাড়তি চাপের জন্য নিধি বেশ অস্বস্তিতে পড়ে যায়, কিন্তু চাপে পড়ে অনেকের আসল প্রতিভা বেরিয়ে আসে।

নিধিও তাদের মধ্যে একজন। এরপর, সে একটি ঘরে নিজেকে বন্দী করে নেন এবং পড়ার মধ্যে এমন ডুবে যায় যে, পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলার সময় ছিল না তার। সব মিলিয়ে 6 মাস ধরে এইভাবে অধ্যাবসায়ের সাথে প্রস্তুতি নেন এবং ইউ.পি.এস.সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন।

তিনি কোনো কোচিং নেননি বা সামাজিক গোষ্ঠীতে যোগ দেননি, তিনি শুধুমাত্র তার কঠোর পরিশ্রমের ভিত্তিতে 83 তম স্থান অর্জন করেছিলেন। এখন তিনি তার পছন্দের ভারতীয় প্রশাসনিক পরিষেবা পেয়েছেন এবং সবকিছু তার পছন্দমতো হচ্ছে।

About Web Desk

Check Also

“পুষ্পা” ফিল্মের রক্ত চন্দন এর দাম জানেন কত? বিলুপ্ত এই চন্দন কীভাবে এল ফিল্মের সেটে? জানলে আপনিও চমকে যাবেন

সম্প্রতি রিলিজ হয়েছে আল্লু আর্জুনের ফিল্ম “পুষ্পা”। এই ফিল্ম রক্ত চন্দনের কাঠ নিয়ে তৈরি। আজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.