Breaking News

বেডরুম সিক্রেট শেয়ার করলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া! জানালেন রাতে ঘুমাতে না পারার কারণ!

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া আজ খ্যাতির শীর্ষে রয়েছেন। তিনি আজ বলিউড থেকে শুরু করে হলিউড সর্বত্র জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন। আজ তিমি পরিশ্রমের জোরে এই সফলতা প্রাপ্ত করতে পেরেছেন। তার অভিনয়ের পাশাপাশি সৌন্দর্যের দিওয়ানা বহু মানুষ। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া এমন একজন ভারতীয় অভিনেত্রী যিনি রাষ্ট্রীয় সীমা ছাড়িয়ে অন্তঃরাষ্ট্রীয় স্তরে সফলতা পেয়েছেন। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া নিজের ক্যারিয়ারে দেশে-বিদেশে বহু হিট ফিল্ম করেছেন।

এহেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বর্তমানে বিখ্যাত গায়ক নিক জোনাস এর স্ত্রী। দর্শকদের তাদের জুটি ভীষণ ভালোও লাগে। আমেরিকাতে প্রথম প্রথম কাজ করার সময় নিক জোনাস এর সাথে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার পরিচয় হয়। প্রথম আলাপ থেকে ধীরে ধীরে তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব হয়। পরে তা সম্পর্কের রূপ নেয়। এখন তারা সুখী দাম্পত্য জীবন এনজয় করছেন। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া একটি ইন্টারভিউ তে জানিয়েছিলেন বিয়ের পর থেকে স্বামী নিক জোনাসের জন্য বহু রাত না ঘুমিয়ে কাটাতে হয়েছে তাকে।

অবশ্য এর আসল কারণও তিনি জানিয়েছেন। তিনি জানান নিক জোনাসের ডায়াবেটিস আছে। যে কারণে অনেক সময় রাতে নিক জোনাসের শারীরিক অসুবিধা হয়। তাই স্ত্রী হওয়ায় প্রিয়াঙ্কা চোপড়া মাঝে মাঝেই ঘুম থেকে উঠে দেখেন নিক ঠিক আছেন কিনা। অবশ্য পাশ্চাত্যে স্বামীর খেয়াল রাখা স্ত্রীয়ের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে না। কিন্তু একজন যথাযথ ভারতীয় নারীর কর্তব্য করে প্রিয়াঙ্কা নিকের যথেষ্ট খেয়াল রাখেন।

নিক জোনাসের জীবনে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার আগে বহু মেয়ে এসেছে এবং গেছে। কিন্তু নিক বিয়ে করেছেন বলিউডের “দেশি গার্ল” প্রিয়াঙ্কা চোপড়া-কে। প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার ব্যক্তিত্ব নিককে আকর্ষণ করেছে বলে জানিয়েছিলেন এক ইন্টারভিউতে। তাদের বয়সের পার্থক্যের জন্য একসময়ের ট্রোল হতে হয়েছিল নিক ও প্রিয়াঙ্কাকে। কিন্তু আজ তারা এই সব কিছুকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে একে অপরের সাথে সুখে আছেন। এই প্রসঙ্গে আপনাদের গুরুত্বপূর্ণ মতামত আমাদের জানাতে পারেন।

About Web Desk

Check Also

বলিউডে অনেক চেষ্টা করেও কাজ পাননি জিৎ! তেলেগু মুভিও ফ্লপ! জেনে নিন জীতেন্দ্র থেকে জিৎ হয়ে ওঠার আসল কারণ।

টলিউডের অন্যতম বিখ্যাত অভিনেতা হলেন জিৎ। পরিশ্রমের জোরে একজন মানুষ যে সফলতা পেতে পারে তার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *