Breaking News

ঐশ্বর্যর হানিমুনের দিন ঘটেছিল এমন এক কাণ্ড, জানলে অবাক হবেন।

ঐশ্বর্য রাই ও অভিষেক বচ্চন 14 বছর ধরে বিবাহিত জীবন পালন করছে এবং দুজনেই বলিউডের অন্যতম সুন্দর দম্পতি। ঐশ্বর্য রাইয়ের সৌন্দর্যের সবাই দিওয়ানা। সৌন্দর্যের দিক থেকে ঐশ্বর্য এর কোন তুলনা হয়না। মানুষ সত্যি বিশ্বাস করতে পারে না যে কেউ কিভাবে এতো সুন্দর হতে পারে। তারা দুজনেই প্রায় নিজেদের এবং তাদের মেয়ে আরাধ্যার ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন।

ঐশ্বর্য রাই বিয়ের আগে একটি দুর্দান্ত ক্যারিয়ার পরিচালনা করেছেন এবং বলিউডে নিজের নাম তৈরি করেছেন। ঐশ্বর্য রাই একটি উপাখ্যান শেয়ার করার সময় বলেছেন যে,”কিভাবে যেন তিনি হঠাৎ বুঝতে পারলেন তিনি আর ঐশ্বর্য রাই নন বরং ঐশ্বর্য রাই বচ্চন এবং তিনি এখন বিবাহিত।” তিনি একটি সংবাদ সংস্থার সাথে সাক্ষাৎকারের সময় তার জীবনের সাথে সম্পর্কিত উপাখ্যানটি শেয়ার করেছিলেন।

এটা সেই সময়ের কথা যখন ঐশ্বর্য সদ্য বিবাহিত ছিলেন এবং তিনি বিয়ের পর হানিমুনে বোরা বোরা যাওয়ার জন্য প্রথমবারের মতন একটি ফ্লাইট ধরেছিলেন। ঐশ্বর্য জানালেন যখন তিনি এলেন তখন সেখানে থাকা এয়ার হোস্টেস তাকে “ওয়েলকাম মিসেস বচ্চন” বলে সম্বোধন করেছিলেন। এয়ার হোস্টেসের মুখে মিসেস বচ্চনের কথা শুনে ঐশ্বর্য একবার অবাক হয়ে গিয়েছিলেন।

এই কথা শোনার সাথে সাথে তিনি এবং অভিষেক একে অপরের দিকে তাকিয়ে হাসলেন।” তিনি বললেন যে,”আমি যখন শুনলাম তখন আমি বুঝতে পারলাম এখন আমি বিবাহিত এবং এখন আমাকে আর কেউ ঐশ্বর্য রাই বলবে না বরং মিসেস বচ্চন বলবে।” আসুন আমরা আপনাকে বলি যে ঐশ্বর্য রাই এবং অভিষেক বচ্চন 2007 সালে বিয়ে করেছিলেন এবং

তাদের 10 বছরের একটি মেয়ে আছে যার নাম আরাধ্যা। একটি সাক্ষাৎকারের সময় ঐশ্বর্যর প্রশংসা করার সময় অভিষেক বলেছিলেন যে,”আমি তার সাথে দেখা করার আগে আমি তার সম্পর্কে অনেক শুনেছি মানুষ মনে করেন যে সে একজন পরী। সে দেখতে একটি পরীর মতন এবং হয়তো আকাশে ওড়ে কিন্তু আমি জানি সে কতটা খাঁটি এবং নম্র।” অভিষেক এবং ঐশ্বর্য অনুষ্ঠানে একসঙ্গে হাজির হয়েছেন এবং তাদেরকে বেশ সুন্দর লাগছিলো।

About Web Desk

Check Also

দিব্যা ভারতীর জীবনে ছিল অনেক গোপন কাহিনী, জেনেনিন কি হয়েছিল 5 এপ্রিল 1993 এর রাতে

অভিনেত্রী দিব্যা ভারতীর নাম শুনলেই এক মিষ্টি মুখের মেয়ের কথা মনে পড়ে। খুব অল্প বয়সেই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *