Breaking News

এক সময়ের হিট নায়িকা সমীরা রেড্ডি, তার এখনকার লুক দেখলে কেঁদে ফেলবেন ..

বলিউডের বিখ্যাত অভিনেত্রী সমীরা রেড্ডিকে সকলেই কম বেশি চেনেন। সমীরা না শুধু বলিউডে কাজ করেছেন এর পাশাপাশি তামিল, তেলেগু, কণ্ণড় আর মালায়ালাম ভাষার ফিল্মেও কাজ করেছেন। 2002 সালে “মেনে দিল তুঝকো দিয়া” ফিল্ম থেকে বলিউডে ডেবিউ করেন তিনি। এই ফিল্মে তার সাথে সঞ্জয় দত্ত ও সোহেল খান ছিলেন। সমীরা রেড্ডি সর্বদা বডি পজিটিভিটি নিয়ে কথা বলেন।

সম্প্রতি তার একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যেখানে তাকে পাকা চুলে দেখা যাচ্ছে। সমীরা রেড্ডি সেই সব অভিনেত্রীদের মধ্যে অন্যতম যারা নিজের বয়স বাড়ার চিহ্ন সবার সামনে আনন্দের সাথে তুলে ধরছেন। বহুবার সমীরা রেড্ডি কে ওজন বেড়ে যাওয়া চেহারা ও মেকআপ ছাড়া ছবি পোস্ট করতে দেখা গেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সমীরা রেড্ডি জানান তিনি আগে প্রতি দুই সপ্তাহ অন্তর অন্তর চুলের রং করতেন।

যাতে কেউ তার পাকা চুল দেখতে না পায়। কিন্তু আজ তিনি চুল রং করতে হবে কি না তা সম্পূর্ণ নিজে ঠিক করেন। তার বাবা অবশ্যই এই নিয়ে চিন্তিত ছিলেন। কিন্তু তিনি তার বাবাকে জানান চুল বয়স বাড়ার একটা চিহ্ন। যা কোনো না কোনো সময় মানুষের সামনে আসবেই। তাই লুকিয়ে কোনো লাভ নেই। আপনাদের জানিয়ে রাখি একসময় তেলেগু সুপারস্টার জুনিয়র এনটিআর এর সাথে সমীরা রেড্ডির নাম নেওয়া হতো।

কিন্তু হঠাৎই তিনি জুনিয়র এনটিআর ও ফিল্মি দুনিয়ার সাথে দূরত্ব তৈরি করে নেন। এই নিয়ে তাকে প্রশ্ন করলে তিনি জানান কেরিয়ারের প্রথমদিকে জুনিয়র এনটিআর এর সাথে তার ভালো বন্ধুত্ব হয়। তিনি সমীরাকে অনেক কিছু শিখিয়ে ছিলেন। সমীরা বরাবরই চেয়েছিলেন তাকে যেন মানুষ নাচ ও অভিনয়ের জন্য চেনেন।

কিন্তু জুনিয়র এনটিআর এর সাথে বন্ধুত্বের কারণে মানুষ তাকে জুনিয়র এনটিআর এর কথিত গার্লফ্রেন্ড হিসেবে চিনতে শুরু করেছিল। যা তার কাছে যথেষ্ট অপমানের ছিল। তাই তিনি জুনিয়র এনটিআর এর সাথে দুরত্ব তৈরি করে নেন। 2014 সালে সমীরা রেড্ডি বিজনেসম্যান অক্ষয় বর্দিকে বিয়ে করেন। বর্তমানে তাদের এক মেয়ে ও এক ছেলে আছে। সমীরা রেড্ডি এখন নিজের পারিবারিক সময় বেশ এনজয় করছেন।

About Web Desk

Check Also

দিব্যা ভারতীর জীবনে ছিল অনেক গোপন কাহিনী, জেনেনিন কি হয়েছিল 5 এপ্রিল 1993 এর রাতে

অভিনেত্রী দিব্যা ভারতীর নাম শুনলেই এক মিষ্টি মুখের মেয়ের কথা মনে পড়ে। খুব অল্প বয়সেই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *