Breaking News

এত বেশি ইনকাম করে, রোজগারের দিক থেকে সুনীল শেট্টির বউকে লেডি আম্বানি বলা হয়

বলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা সুনীল শেট্টির নাম শোনেননি এমন মানুষ খুব কমই পাওয়া যাবে বলে মনে হয়। বলিউডে 100 টির বেশি ফিল্মে কাজ করেছেন সুনীল। তার বিখ্যাত ফিল্ম গুলি হল- দিলবালে, মহড়া, অন্ত, কৃষ্ণা, রক্ষক, বর্ডার, ধারকান, ভাই, হেরা ফেরি। সুনীল শেট্টি কে বলিউডে “আন্না” বলেও ডাকা হয়ে থাকে। সুনীল শেট্টির প্রফেশনাল লাইফ নিয়ে তো কম বেশি সকলেই জানেন কিন্তু তার পার্সোনাল লাইফ নিয়ে বেশি কেউ জানেন না।

তার স্ত্রী মানা শেট্টি লাইমলাইট থেকে দূরেই থাকেন। মানা শেট্টির সৌন্দর্য বলিউডের নামকরা হিরোইনদের থেকে কোন অংশে কম না। মানা শেট্টি কে সুনীল শেট্টি প্রথমবার মুম্বাইয়ের একটি পেস্ট্রি শপ এ দেখেছিলেন এবং দেখার সাথে সাথেই তার প্রেমে পড়ে যান। মানা শেট্টির সাথে সম্পর্ক করার জন্য সুনীল শেট্টি অনেক চেষ্টা করেন। কিন্তু কোনো লাভ না হলে তিনি মানার বোনের সাথে বন্ধুত্ব করেন। তার সাহায্যেই মানার সাথে পরবর্তী সময়ে বন্ধুত্ব করতে পারেন সুনীল।

সুনীল শেট্টি আর মানা শেট্টির বন্ধুত্ব ধীরে ধীরে সম্পর্কের রূপ নেয়। তাদের কালচার আলাদা হওয়ায় প্রথমে দুজনের পরিবার থেকেই এই সম্পর্ক মানতে চায়নি। কিন্তু দীর্ঘ নয় বছরের অপেক্ষার পর তাদের পরিবার এই সম্পর্ক মেনে নেয় এবং তারা বিয়ে করে নেন। বর্তমানে সুনীল শেট্টি ও মানা শেট্টির দুই সন্তান আছে- আতিয়া শেট্টি ও আহান শেট্টি। সূত্র থেকে জানা যায় অভিনেতা সুনীল শেট্টির থেকে তার স্ত্রী মানা শেট্টি অনেক বেশি উপার্জন করেন।

সুনীল শেট্টি বছরে 100 কোটি টাকা ইনকাম করেন, যার মধ্যে বেশিরভাগই ইনকাম হয় মানার সাহায্যে। মানা শেট্টি স্বামী সুনীল শেট্টির সাথে মিলে S2 নামে একটি রিয়েল এস্টেট প্রোজেক্টও করেছেন। এছাড়াও তাদের হোটেল আছে। সুনীল শেট্টির লাইফস্টাইলের ব্যাপারে বলতে গেলে তার বহু আলিশান ফ্ল্যাট, দামী গাড়ি ও বাইক আছে। মানা শেট্টির এত বেশি ইনকামের জন্য ও ব্যবসা সম্পর্কিত বুদ্ধিমত্তার কারণে তাকে “লেডি আম্বানি” বলা হয়ে থাকে।।

About Web Desk

Check Also

দেশের জন্য শহীদ হয়েছেন ছেলে, বাবার চোখে জল নিয়ে শেষবারের মতো স্যালুট জানালেন ছেলেকে…

উত্তরাখণ্ডের বাগেশ্বরে অবস্থিত ত্রিশূল পর্বতে পর্বতারোহণ অভিযানের সময় নৌবাহিনী লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রজনীকান্ত যাদব একটি হিমবাহের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *