Breaking News

35 বার ফেল করা নিয়ে প্রতিবেশীর মজা করেছিল, শেষে আইপিএস অফিসার হয়ে পরিবারের নাম আলোকিত করলেন ইনি

নিজের স্বপ্ন পূরণ করার লক্ষ্যে মানুষ যখন সফল হয় তখন সে খুশি হয়। কিন্তু যখন শুধু একের পর এক অসফলতাই হাতে আসতে থাকে স্বাভাবিকভাবেই তখন মানুষের মনে হার মেনে নেওয়ার কথা আসে। আজ আমরা আপনাদের এমন এক আইপিএস অফিসারের কথা বলব যিনি অসফল হওয়ার পরেও হার মেনে নেননি। এই আইপিএস অফিসারের নাম হলো বিজয় বর্ধন আইপিএস অফিসার বিজয় বর্ধন হরিয়ানার সিরসা জেলার বাসিন্দা।

তিনি সিরসা থেকেই স্কুল পাস করেন। এরপর তিনি হিসার চলে যান। সেখানেই তিনি গ্রাজুয়েশন পাস করেন। এরপর তিনি 2013 সালে “ইউ পি এস সি” পরীক্ষা দেওয়ার কথা ভাবেন। “ইউ পি এস সি” পরীক্ষার প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য তিনি দিল্লি চলে যান এবং সেখানে একটি কোচিং সেন্টারে ভর্তি হন। অন্যান্য ছাত্রদের মত তিনিও প্রথম থেকেই পরিশ্রম করতে থাকেন। “ইউ পি এস সি” পরীক্ষার প্রস্তুতি নেওয়ার শুরু করেন।

এর পাশাপাশি তিনি হরিয়ানায় পিএস, ইউপি পিএস, এসএসসির মত তিরিশটি প্রতিযোগী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু প্রতিবারই তিনিও অসফল হন। কিন্তু তিনি হার না মেনে “ইউ পি এস সি” পরীক্ষার প্রস্তুতি জাড়ি রাখেন। “ইউ পি এস সি” পরীক্ষার 2014 সাল ও 2015 সালে তিনি প্রি ও ক্লিয়ার করতে পারেননি। 2016 সালে মাত্র 6 নম্বরের জন্য তার নাম মেরিট লিস্ট আসে না। 2017 সালের পরীক্ষায় প্রি আর মেন্স ক্লিয়ার করলেও ইন্টারভিউতে তিনিও সফল হতে পারেন না।

এতবার অসফল হওয়ার পর তার পাড়া-প্রতিবেশি ও আত্মীয় স্বজনেরা তাকে “ইউ পি এস সি”র আশা ছেড়ে দেওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু তিনি সেই সব কথাকে কানে না তুলে 2018 সালে আবার “ইউ পি এস সি” পরীক্ষায় বসেন এবং এইবার 104 তম রাঙ্ক পেয়ে তিনি “ইউ পি এস সি” পরীক্ষা পাস করেন। তার রেজাল্ট শুনে অনেকেই অবাক হন। আজ বিজয় বর্ধন সেই সমস্ত পরীক্ষার্থীদের অনুপ্রেরণা যারা অল্পতেই হার মেনে নিতে চান।।

About Web Desk

Check Also

“পুষ্পা” ফিল্মের রক্ত চন্দন এর দাম জানেন কত? বিলুপ্ত এই চন্দন কীভাবে এল ফিল্মের সেটে? জানলে আপনিও চমকে যাবেন

সম্প্রতি রিলিজ হয়েছে আল্লু আর্জুনের ফিল্ম “পুষ্পা”। এই ফিল্ম রক্ত চন্দনের কাঠ নিয়ে তৈরি। আজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.