Breaking News

“I am Sorry মা আমি ৪০০০০ টাকা হেরে গেছি, তুমি কেঁদোনা” ছোট বয়সেই মোবাইল হাতে দিয়ে করুণ পরিণতি শিশুর..

প্রত্যেক বাবা-মা চায় যেন তাদের সন্তান পড়াশোনায় বেশি মনোযোগ দেয় এবং তাদের সময় নষ্ট করা উচিত নয়। যদিও শিশুদের জন্য খেলাধুলা শিক্ষার মতনই সমান গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু আজকের স্মার্টফোন এবং সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে শিশুরা আউটডোর গেম খেলতে পছন্দ করে না এবং সারাদিন মোবাইল নিয়ে বসে থাকে। শিশুরা বিশেষত মোবাইল গেম খেলতে বেশি পছন্দ করেন। তারা ঘন্টার পর ঘন্টা গেম খেলে কাটিয়ে দিতে পারে। মধ্যপ্রদেশের ছাতারপুর জেলার 13 বছর বয়সী কৃষ্ণ মোবাইল গেম খেলায় আসক্ত ছিল।

সে লকডাউন এর সময় তার মায়ের মোবাইল থেকে অনলাইন ক্লাস নিত কিন্তু গোপনে গেম খেলা শুরু করে। এখন গেমটি খেলা পর্যন্ত বিষয়টি ঠিক ছিল কিন্তু সেই গেমটিতে টাকা বিনিয়োগ করতে শুরু করে সে। কৃষ্ণ ফ্রী ফায়ার গেম খেলতে খুব পছন্দ করত এবং সে গেমে চল্লিশ হাজার টাকা হেরে যান। এই টাকা তার মায়ের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে কেটে নেওয়া হয়েছে। প্রীতি যখন ব্যাংকের টাকা কেটে নেওয়ার মেসেজ পান তখন তিনি তার ছেলেকে ফোন করেন। তার ছেলে তাকে জানায় যে ফ্রী ফায়ার গেম থেকে টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে।

এই কথা শুনে মা খুব রেগে যান এবং তিনি ছেলেকে বকাঝকা শুরু করেন। মায়ের বকা শুনে সে এতটাই ডি-প্রে-শ-নে চলে যায় যে সে গ-লা-য় ফাঁ-স দিয়ে আ-ত্ম-হ-ত্যা করে নেয়। আ-ত্ম-হ-ত্যা করার আগে সে একটি সু-ই-সা-ই-ড নোট লিখেছে যেটি পরলে আপনার চোখে জল চলে আসবে। তার বাবা একজন প্যাথলজি অপারেটর এবং মা জেলা হাসপাতালে কর্মরত। কৃষ্ণ ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়াশোনা করত এবং তার একটি বোনও আছে। শুক্রবার দুপুরে সে ও তার বোন বাড়ীতে একা ছিল। তার বাবা প্যাথলজিতে ছিলেন এবং মা হাসপাতালে ছিলেন।

মায়ের মোবাইলে 40000 টাকা কেটে নেওয়ার মেসেজ আসে এবং এমন অবস্থায় মা ছেলেকে ডেকে জিজ্ঞেস করেন যে কিভাবে টাকা কেটে নেওয়া হয়। এই বিষয়ে ছেলে তাকে জানায় যে গেম খেলে সেই টাকা খরচ করেছেন যার পরে তার মা তার ওপর খুব রেগে যায় এবং তাকে খুব বকাঝকা করে। মায়ের বকা ঝকা শোনার পর কৃষ্ণ ঘরের ভেতরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। কিছুক্ষণ পর তার বড় বোন দরজায় নক করল এবং যখন ভেতর থেকে কৃষ্ণের কোনো সাড়া পাওয়া গেল না তখন সে মা এবং বাবাকে ফোন করে।

বাবা বাড়িতে এলে তারা কৃষ্ণের ঘরের দরজা ভেঙে দেয় কিন্তু ভেতরের দৃশ্য দেখে তার মায়ের পায়ের নিচের মাটি সরে যায়। কৃষ্ণের ঘর থেকে একটি সু-ই-সা-ই-ড নোট পাওয়া গেছে যাতে তিনি লিখেছিলেন যে, ফ্রী ফায়ার গেম থেকে তিনি 40 হাজার টাকা হেরেছেন তিনি আরো জানান যে হতাশার কারণে তিনি আ-ত্ম-হ-ত্যা করেছে। সে তার মায়ের জন্য লিখেছে, “আই এম সরি মা কেঁদোনা।” শিশুদের সুইসাইড নোট এবং সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হচ্ছে। যাইহোক আপনি পুরো বিষয়টি কিভাবে দেখছেন মন্তব্য করে আমাদের জানান।।

About Web Desk

Check Also

“পুষ্পা” ফিল্মের রক্ত চন্দন এর দাম জানেন কত? বিলুপ্ত এই চন্দন কীভাবে এল ফিল্মের সেটে? জানলে আপনিও চমকে যাবেন

সম্প্রতি রিলিজ হয়েছে আল্লু আর্জুনের ফিল্ম “পুষ্পা”। এই ফিল্ম রক্ত চন্দনের কাঠ নিয়ে তৈরি। আজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.