Breaking News

এই পরিবার সনু সুদ এর সাহায্যের টাকা নেয় নি বরং কিছু ডাল, আটা, ময়দা তার টিম কে দিয়ে এসেছেন, অন্যদের সাহায্য করার জন্য।

দশরথ মাঝির কোন পরিচয়ের দরকার নেই। স্ত্রীর প্রেমে তিনি পাহাড়ের বুক চিরে রাস্তা তৈরি করেছিলেন। তিনি মাউন্টেন ম্যান নামেও পরিচিত। বিশ্ব তার ভালবাসা উৎসর্গ এবং প্রেমের জন্য করা অক্লান্ত প্রচেষ্টা সম্পর্কে অবগত। তবে আজ এই পাহাড়ি মানুষের পরিবার চরম দারিদ্র্যের মধ্যে জীবনযাপন করছে। এমন পরিস্থিতিতে দশরথ মাঝির পরিবারকে সাহায্য করতে এগিয়ে এসেছেন দেশের নায়ক ও বলিউড অভিনেতা সনু সুদ। তিনি নিজের দলকে দশরথ মাঝির বাড়িতে পাঠিয়েছেন। তবে এই পরিবার সাহায্য নিতে অস্বীকার করেছিল।

এর সাথে এই প্রতিবেদনে এটিও প্রকাশ করা হয়েছে যে যখন দলটি রেশন কিনে দশরথ মাঝির বাড়িতে প্রবেশ করে। তার মধ্যে ছিল চাল ময়দা এবং আলু। আসুন আমরা জানিয়ে দিয়েছে সনু সুদ অব্দি কেউ খবর পৌঁছে দিয়েছিল যে দশরথ মাঝি পরিবারকে সহায়তা করা দরকার। এছাড়াও তার নাতনি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে তারও চিকিৎসা দরকার। এই খবরটি সংসদের কাছে পৌঁছানোর সাথে সাথে তিনি তাৎক্ষণিক সাহায্যের জন্য পৌঁছেছিলেন।

এর সাথে সনু সুদের অনুষদের আগত দলটিও মাঝির পরিবারকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে তার নাতনির পায়ের অপারেশন করতেও তারা সহায়তা করবেন। সনু সুদ এর দল বলেছে যে তিনি যখনই মেয়ে সন্তানের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যান তার একবার ডাক্তারের সাথে কথা বলা উচিত। আপনাদের জানিয়ে দিয়ে শুক্রবার টুইটারে অভিনেত সনু কে ট্যাগ করে একটি টুইট করা হয়েছিল। যেখানে লেখা ছিল, “সনু সুদ স্যার দশরথ মানঝি মাউন্টেন ম্যান নামে পরিচিত।

তাদের নিয়ে একটি চলচ্চিত্র তৈরি করা হয়েছে। স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসায় তিনি একটি পাহাড় ভেঙ্গে রাস্তা তৈরি করেছিলেন। আজ এই পরিবার অত্যন্ত দারিদ্র তার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এই লোকেদের আপনার সাহায্যের প্রয়োজন।” এই টুইটারের ঠিক পরের দিন সনু সুদ জবাব দিয়ে লিখেছিলেন, “আজ থেকে তাদের সমস্যা শেষ।” আজকে সন্ধ্যার মধ্যেই তাদের কাছে সাহায্য পৌঁছে যাবে। সনু সুদ অব্দি সাহায্যের আবেদন করা নম্বর গুলিতে ফোন করার সময় দেখা গেল যে শনিবার সন্ধ্যাতেই দশরথের পরিবারকে সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

লক্ষনীয় বিষয় হলো সনু সুদ প্রতিনিয়ত লোকেদের সহায়তা করে যাচ্ছেন। প্রথমে তিনি লকডাউনে আটকা পড়া শ্রমিকদের ঘরে পৌঁছে দেন। তারপর তার দল ক্রমাগত কাউকে মেডিকেল সুবিধা দেওয়া থেকে শুরু করে ওষুধ সরবরাহ করা তেও সাহায্য করছে। সনু সুদ এবং তার দল গত বছর লকডাউন থেকে সক্রিয় হয়ে লোকেদের সহায়তা করে আসছে। তিনি মেডিকেল থেকে লোকজনের কাছে ও রেশন ও পৌঁছে দিচ্ছেন। এর পাশাপাশি তিনি অনাথ শিশুদের লেখাপড়ার দায়িত্ব নিয়েছেন‌।।

About Web Desk

Check Also

বিস্ময়কর ঘটনা: ৪ হাত-পা ওয়ালা শিশু জন্ম নিতেই গ্রামে ঘটে গেলো এই ঘটনা!

প্রকৃতির এক অনন্য রূপ দেখা গেলো সোমবার বিহারের কাটিহার সদর হাসপাতালে। যেখানে চার হাত-পা বিশিষ্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published.