Breaking News

এক কৃষক বাবার চোখে জল এসে ছিল, যখন জানতে পারল তার মেয়ের ইউপিএসসি পরীক্ষায় পাশ করেছে।

বলা হয়ে থাকে যে যদি কোনো কাজ দৃঢ় নিষ্ঠা ও কঠোর পরিশ্রম দিয়ে করা হয় তবে সেটা অবশ্যই সফলতা পায়। এমনই একটি উদাহরণ হলেন উত্তরাখণ্ডের ছোট গ্রাম রামপুরের বাসিন্দা প্রিয়াঙ্কা দেওয়ান। চামোলি জেলার দেওয়াল ব্লকের রামপুরের বাসিন্দা প্রিয়াঙ্কা দেওয়ান তার কঠোর পরিশ্রমের সাথে ইউপিএসসি পরীক্ষায় 257 তম স্থান অর্জন করে কেবল তার গ্রামকেই নয় গোটা দেশকে গর্বিত করেছেন।

প্রিয়াঙ্কা দেওয়ানের বাবার নাম রাম দেওয়ান এবং তিনি একজন কৃষক ও তাঁর মায়ের নাম বিমলা দেবী এবং তিনি একজন গৃহিনী। পারিবারিক অবস্থা দুর্বল হওয়ার জন্য তিনি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পড়াশোনা করতে পারেননি ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও। তিনি গ্রামের স্কুল থেকে পড়াশোনা শেষ করেন।

তিনি শুধু পড়াশোনা করতেন না তার বাবাকে সাহায্য করতেন কাজে। তার দশম শ্রেণী ও দ্বাদশ শ্রেণীর রেজাল্ট খুবই ভালো হয়েছিল। এটি দেখে আশেপাশের সবাই বলেছিল যে সে পড়াশোনায় খুব ভালো এবং তাকে পড়াশোনা করার জন্য সুযোগ দেওয়া উচিত এরপরে প্রিয়াঙ্কার বাবা তাকে গোপেশ্বর ডিগ্রি কলেজে ভর্তি করান।

প্রিয়াঙ্কা পড়াশোনার খরচ চালাতে টিউশনি পড়তে শুরু করেছিল। তিনি ডিএম মুরুগেসন থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন। তাদের কলেজে যখন ডিএম মুরুগেসন এসেছিলেন তখন প্রিয়াঙ্কা দেখে যে তাকে সবাই সম্মান করছে এবং সব জায়গা সাজানো হয়েছে,

এর পরে তিনি তার সাথে কথোপকথনের সময় খুব দৃঢ়ভাবে সংকল্পবদ্ধ হয়েছিলেন যে যাই হোক না কেন তিনি ভালো নাম্বার পেয়ে ইউপিএসসি পরীক্ষা পাস করবেন। এর পরে তিনি ইউপিএসসির জন্য প্রস্তুতি শুরু করেন এবং তিনি খুব কঠোর পরিশ্রম করেছিলেন। তার পরে তিনি ইউপিএসসি পরীক্ষা দেন এবং পাস করেন 257 তম রেঙ্ক নিয়ে। এই খবরটি শুনে তার গ্রামের লোক এবং তার বাবা খুব খুশী হয়।।

About Web Desk

Check Also

“পুষ্পা” ফিল্মের রক্ত চন্দন এর দাম জানেন কত? বিলুপ্ত এই চন্দন কীভাবে এল ফিল্মের সেটে? জানলে আপনিও চমকে যাবেন

সম্প্রতি রিলিজ হয়েছে আল্লু আর্জুনের ফিল্ম “পুষ্পা”। এই ফিল্ম রক্ত চন্দনের কাঠ নিয়ে তৈরি। আজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.