Breaking News

কপাল, আঙ্গুল, পা, বলে দেয় মেয়েরা কতটা ভাগ্যবান.. বিয়ের আগে এইভাবে একবার দেখে নেবেন

যখনই কোনো পরিবার তাদের বাড়ির জন্য পুত্রবধূকে পছন্দ করে, তারা অনেক কিছুর পরীক্ষা করেন। মেয়েটি কতটা শিক্ষিত, তার আচরণ কেমন, তার বর্ণ কি, পারিবারিক পটভূমি কি ইত্যাদি ইত্যাদি। আপনি অবশ্যই লক্ষ্য করেছেন যে কোনো ছেলের যখন সুসংহত বিবাহ হয় তখন বাড়ির মহিলারা দলবেঁধে মেয়েটিকে দেখতে যায়,

তখন ছেলেটি কেবল মেয়েটির চেহারা এবং আচরণ দেখে তবে মহিলারা মেয়েটির কপাল, আঙ্গুল এবং পা পর্যবেক্ষণ করে। এমন পরিস্থিতিতে আপনি কি কখনো ভেবে দেখেছেন যে মহিলারা কেন এটি করে? সর্বোপরি কেন একটি মেয়ের আঙ্গুল এবং পা এবং কপালের আকার কেন এবং কতটা গুরুত্বপূর্ণ?

এই প্রশ্নের উত্তর প্রাচীন সমুদ্রবিদ্যা তে লুকিয়ে আছে। এই সমুদ্রবিদ্যা অনুসারে যে কোন মেয়ের দেহের অঙ্গ গুলির গঠন দেখে আমরা জানতে পারি যে সে কতটা ভাগ্যবান এবং ভালো। সে আপনার বাড়িতে এলে কি পরিবর্তন হবে। সমুদ্রবিদ্যার মতে চওড়া কপাল যুক্ত মেয়েরা খুব ভাগ্যবতী।

এই জাতীয় মহিলারা যদি আপনার বাড়িতে বউ হয় আসে তবে পুরো পরিবারের উপকার হয়। পরিবার তার ঘরে উপকারের সাথে ভাগ্য নিয়ে আসে। তার আগমনে লক্ষী ঘরে আসে। এজাতীয় পরিবারের অর্থের অভাব হয় না। প্রতিটি কাজে পুত্রবধূ তার সাথে একটি সৌভাগ্য নিয়ে আসে।

যদি কোনো মেয়ের শরীরে বাম দিকে তিল থাকে তবে সে ভাগ্যবতী মেয়ে। এই জাতীয় মেয়ে বাড়িতে এলে সুখ এবং সমৃদ্ধি আসে। শুধু এটি নয় এমন মেয়েকে বিয়ে করা ছেলের ভাগ্য জ্বলজ্বল করে। এই মেয়েটি পুরো পরিবারের ভাগ্য উজ্জ্বল করার ক্ষমতা রাখে। যে মেয়েরা পায়ের তলদেশে রেখার সাথে পদ্ম, সংখ্যাবাচক এর আকার ধারণ করে সে মেয়েরা রাজযোগ নিয়ে জন্মগ্রহণ করে।

এই ধরনের মেয়েরা কিছু বড় পোস্টে কাজ করে। ক্যারিয়ারের যেকোন ক্ষেত্রে তারা শীর্ষে থাকেন কেউ তাদের চ্যালেঞ্জ করতে পারে না। বড়ো আঙ্গুল যুক্ত মেয়েরা ভাগ্যবতী এবং পাশাপাশি বুদ্ধিমতি। অন্যদিকে দীর্ঘ গলায় মেয়েদের লক্ষ্মী হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

এজাতীয় মেয়েরা শ্বশুর বাড়িতে এসে পুরো পরিবার কে আগলে রাখে। যদি কোন মেয়ের পায়ের আঙুলগুলি প্রশস্ত, বৃত্তাকার এবং লাল হয় তবে সেটা শ্বশুরবাড়িতে আনন্দ উপভোগ করে। যে মেয়েটির পায়ের পাতা চামড়া কুঁচকানো হয়না তারা অত্যন্ত সৌভাগ্যবতী হন।।

About Web Desk

Check Also

দিব্যা ভারতীর জীবনে ছিল অনেক গোপন কাহিনী, জেনেনিন কি হয়েছিল 5 এপ্রিল 1993 এর রাতে

অভিনেত্রী দিব্যা ভারতীর নাম শুনলেই এক মিষ্টি মুখের মেয়ের কথা মনে পড়ে। খুব অল্প বয়সেই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *