Breaking News

চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট এর চাকরি ছেড়ে আজ চাষ করেন রাজীব, কীভাবে তিনি ৫০ লাখ টাকা আয় করেন জেনে নিন।

আমাদের দেশ কৃষি প্রধান। বর্তমান সময়ে দেশ যতই উন্নতি করুক, মঙ্গল গ্রহে পৌঁছে যাক কিন্তু দেশ চলে তো দেশের কৃষকদের কারণেই। যেখানে চাষাবাদ করে কিছু কৃষক কোনোমতে দুবেলার খাবার জোগাড় করে সেখানেই কিছু কৃষক ফসল ফলিয়ে লাখ টাকা রোজগার করে। বর্তমান সময়ে পরিবেশ আর ফসলের সঠিক জ্ঞান থাকা অত্যন্ত আবশ্যক কৃষকদের জন্য।

আজ আপনাদের এমন এক কৃষকের কথা বলব যে চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট -এর চাকরি ছেড়ে ফসল চাষ করার সিদ্ধান্ত নেন। এই কৃষকের নাম রাজীব বিট্টু। তাঁর মতে চাষাবাদ করে তাঁর ৫০ লাখ টাকার বেশি রোজগার হয়। তিনি কোনো প্রকার রাসায়নিক সার ব্যবহার না করে পরাম্পরাগত ভাবে চাষ করেন।

বিহারের গোপালগঞ্জ জেলার বাসিন্দা রাজীব বিট্টু তাঁর ভাই-বোনদের সাথে ছোটো থেকে বড়ো হয়েছেন। তিনি তাঁর সব ভাইবোনদের মধ্যে বড়ো। রাজীব বিহারের এক ছোটো স্কুল থেকে পড়াশোনা শেষ করে ঝাড়খন্ড থেকে গ্র্যাজুয়েশন পাস করেন। এরপর তিনি রাঁচিতে কিছু দিন পড়াশোনা করেন ও আইআইটি -তে ভর্তির চেষ্টা করেন।

কিন্তু সফলতা না পেয়ে তিনি বি.কম -এ ভর্তি হয়ে যান। ঐ বছরই তিনি CA -এর পড়াশোনাও শুরু করে দেন। রাজীবের স্ত্রী রশ্মি সহাই একজন প্লাস্টিক ইঞ্জিনিয়ারি। রাজীব কৃষকদের জরুরি তথ্য দেওয়ার জন্য একটি NGO শুরু করেন যার নাম “অঙ্কুর রুরাল এণ্ড ট্রাইবেল ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি”।

রাজীব চাষাবাদ শুরু করেন রাঁচি থেকে। এই সময় তিনি চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট -এর চাকরি পেয়ে যান। ২০০৪ -এ তাঁর মাইনে ছিল ৪০ হাজার টাকা। কিন্তু চাষে তাঁর বেশি লাভ মনে হওয়ায় তিনি চাকরি ছেড়ে চাষাবাদ করার সিদ্ধান্ত নেন। মেয়ে হওয়ার পর তিনি কিছুদিনের জন্য ঝাড়খন্ড ছেড়ে গোপালগঞ্জ যান। এ সময় তাঁর এক প্রতিবেশী যিনি কৃষক ছিলেন তাঁর মেয়েকে কোলে নেন।

কিন্তু কৃষকটির নোংরা জামা-কাপড় তাঁর মেয়ের পছন্দ হয় না। তাঁর মনে হয় ছোটো থেকেই যদি বাচ্চাদের মনে কৃষকদের নিয়ে ঘৃণা সৃষ্টি হয় পরবর্তী সময়ে তাহলে কী হবে! এরপর তিনি সিদ্ধান্ত নেন তাঁর সন্তানদের মনে কৃষকদের প্রতি সম্মান সৃষ্টি করার জন্য তিনি চাষই করবেন। এরপর তিনি কৃষি বিভাগ থেকে চাষের জরুরি তথ্য জোগাড় করতে থাকেন।

তিনি চাষের জন্য রাঁচি থেকে ২৮ কিলোমিটার দূরে ১০ একর জমি লিজ এ নেন। সেই জমিতে চাষের লাভ থেকে ৩৩% জমির মালিককে দেবেন এই শর্তে সরকারি দলিলে সই-সাবুদও হয়। তিনি আড়াই লাখ টাকা খরচ করে ৭ একর জমিতে তরমুজ আর কস্তুরী চাষ করেন। মোট ১৯ লাখ টাকা তাঁর এই চাষে লাভ হয়।

জমির মালিককে টাকার অংশ দেওয়ার পর ও অন্যান্য খরচের পরও তাঁর ৭-৮ লাখ টাকা লাভ থাকে। তিনি চাষের কাজে সাহায্যের জন্য প্রায় ৪৫ জন মজুর রাখেন এবং ২০১৬ সালে চাষ করে তাঁর ৪০-৫০ লাখ টাকা লাভ হয়। রাজীব তাঁর দুই বন্ধু দেবরাজ আর শিবকুমারের সাথে চাষের কাজ করেন। তাঁর বর্তমান লক্ষ্য ১ কোটির লাভ। রাজীব বহু কৃষকের প্রেরণা।।

About Web Desk

Check Also

শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান এর সাথে ডেট করেছিলেন জুহি চাওলার মেয়ে, জল্পনা তুঙ্গে, অবশেষে মুখ খুললেন অভিনেত্রী…

শাহরুখ খানকে বলিউডের বাদশা বলা হয় এবং বিখ্যাত অভিনেত্রী জুহি চাওলাও একসময় দর্শকদের হৃদয়ে রাজত্ব …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *