Breaking News

20 বছর ধরে বন্দি এই মহিলা কচ্ছপটি, মুক্তি পেতেই 37,000 কিলোমিটার পথ অতিক্রম করল সন্তান দের জন্য…..

মানুষের মতো, প্রাণীগুলিও একটি নিরাপদ বাড়ির সন্ধান করে, যেখানে তারা এবং তাদের শিশুরা স্বাচ্ছন্দে বাস করতে পারে। একটি কচ্ছপ যাকে প্রকৃতিগতভাবেই শান্ত বলা হয়। এই কচ্ছপেরা সাধারণত সমুদ্রের মধ্যেই থাকে। যা প্রত্যেকের কাছে স্বাভাবিকভাবেই আকর্ষণীয়। তবে এই নিষ্পাপ ও শান্ত প্রাণীর জীবন বিপদজনক পরিস্থিতিতে রয়েছে বলে মনে হচ্ছে, কারণ কয়েক বছর ধরেই তাদেরকে প্রচুর পরিমাণে শিকার করা হচ্ছে।

যদিও এখন বিশ্বের সমস্ত দেশে এই কচ্ছপ সংরক্ষণের জন্য বিভিন্ন ধরনের অভিযান চালানো হচ্ছে। বর্তমানে, যোশি নামের একটি মহিলা কচ্ছপ, সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ছড়িয়ে পড়েছে। কারন, কয়েক বছর আগে এই কচ্ছপ নিজের জন্য একটি নিরাপদ বাড়ি খুঁজতে সমুদ্রের 37,000 কিলোমিটার পথ ভ্রমণ করেছিল। সকলেই এই সাধারন কচ্ছপের অসাধারণ গল্পটি শুনে অনেক অনুপ্রেরণা পান।

জোশি নামের এই মহিলা কচ্ছপটিকে আহত অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল। তাকে দেখার সাথে সাথেই পশু প্রেমিকরা তার চিকিৎসা করেছিলেন। এবং পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার আগে পর্যন্ত তার ভালো করে যত্ন নিয়েছিলেন। ওই সময়ই তার শরীরে একটি স্যাটেলাইট ট্যাগ লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল, যাতে তার প্রজাতি সম্পর্কে আরও তথ্য পাওয়া যায়। তারপর 20 বছর ধরে বন্দী থাকার পরে অবশেষে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল।

মুক্তি পাওয়ার পরে, কচ্ছপটি তার নিজের জন্য বাড়ির সন্ধান শুরু করে এবং এর কারনে তিনি হাঁটার সময় প্রায় অর্ধেক বিশ্ব ভ্রমণ করেছিল। লোকেরা যখন এই কচ্ছপের 37,000 কিলোমিটার যাত্রার গল্প শোনে, তখন তারা অবাক হয়ে যায়। জীববিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, এই জোশি নামের মহিলা কচ্ছপটি 180 কেজির। আসলে, এই কচ্ছপটি থাকার জন্য একটি জায়গা খুঁজছিল,

যেখানে তিনি তার সন্তানদের জন্ম দিতে এবং ভালোভাবে লালন-পালন করতে পারবে। এ কারণেই কচ্ছপটি 37,000 কিলোমিটার দীর্ঘ পথ অতিক্রম করেছিল। এই কচ্ছপটি আফ্রিকা থেকে তার যাত্রা শুরু করেছিল এবং যা শেষ হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে। বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, আমাদেরকে বুঝতে হবে যে এই প্রাণীগুলো কেন এবং কিভাবে এই দীর্ঘ দূরত্বকে অতিক্রম করে।

আজ আমরা যেই কচ্ছপটির ভাইরাল পোস্ট নিয়ে আলোচনা করছি, তা IFS কর্মকর্তা প্রবীণ কাসওয়ান সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে শেয়ার করেছিলেন। তিনি তার পোস্টে লিখেছিলেন যে, ‘লগারহেড টার্টেলের বাড়ি খুঁজে পাওয়ার এক অবিশ্বাস্য যাত্রা। ইনি হলেন জোশি নামের একটি মহিলা কচ্ছপ। আফ্রিকা থেকে অস্ট্রেলিয়ায় তার থাকার জায়গা সন্ধান করতে করতে তিনি 37,000 কিলোমিটার পথ ভ্রমণ করেছিলেন।

তিনি আরো লিখেছিলেন যে, যোশীকে 20 বছর ধরে বন্দি করে রাখা হয়েছিল। কারণ সে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। পরবর্তী প্রশিক্ষকরা তাকে নিখুঁত স্বাস্থ্যে ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করেছিল এবং কচ্ছপটির সাথে একটি স্যাটেলাইট ট্যাগ সংযুক্ত করা হয়েছিল। এরপর গবেষকরা তাকে ছেড়ে দেয়। এবং তার যাত্রার ওপর নজর রাখা হয়। লোকেরা তার এই পোস্টটিকে তীব্রভাবে শেয়ার করেছিল। তবে বর্তমান সময়ে কচ্ছপ শিকার খুবই বেড়ে গেছে।

শুধু তাই নয়, চোরাচালানকারীদের কারণে পরিস্থিতি এমন হয়ে গেছে যে, হলুদ রঙের কচ্ছপগুলি প্রায় বিলুপ্তির পথে। জীববিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, বিশেষত দুটি কারণের জন্য এই কচ্ছপকে স্বীকার করা হয়। প্রথমটি হল, কচ্ছপের মাংস খাওয়ার জন্য। এবং দ্বিতীয়টি হল, তাদের ক্রমবর্ধমান বাণিজ্যের জন্য। এই সমস্ত কারণে কচ্ছপ চোরাচালানের ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা বন্ধ করা দরকার। অন্যথায়, একদিন এমন সময় আসবে যখন এই অমূল্য প্রাণীগুলিকে কেবল বইগুলিতেই দেখা যাবে।।

About Web Desk

Check Also

রেভ পার্টিতে কি হয় তার সত্যতা জানালেন শাহরুখপুত্র আরিয়ান, নিজের মুখেই বললেন চার বছর ধরে মা_দ_ক সেবন করছি…

বিলাসবহুল জীবনযাপন করে সুপারস্টার শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান আজকাল অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। মুম্বাই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *