Breaking News

দেশের প্রথম লেফটেন্যান্ট পদে মেয়ে হিসেবে প্রথম স্থান অধিকার করলেন মহিমা.…জেনে নিন তার সফলতার গল্প…

আমাদের দেশে মহিলা ও কন্যারা পরিবারের দায়িত্বের পাশাপাশি দেশের দায়িত্ব পালন করছে। অতি ক্ষেত্রে তারা দিনদিন নতুন নতুন উচ্চতায় স্পর্শ করছে। আমাদের দেশের কন্যা মহিমা সেন পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করে লেফটেন্যান্ট হয়ে দেশের গর্ব বাড়িয়ে তুলেছে। 21 বছর বয়সী মহিমা পঞ্চকুলার অমরাবতী এনকিলের বাসিন্দা।

তিনি পাঞ্জাবের ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ছাত্রী। পিইসির ছাত্রী মহিমা তার প্রথম প্রয়াসে সেনা পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে। তার পরিবারসহ পুরো দেশ তার এই সাফল্যে গর্বিত এবং তার ভবিষ্যতের জন্য অনেক শুভেচ্ছা জানাচ্ছে। বর্তমানে মহিমা ভারতীয় সেনাবাহিনী পরিচালিত বিশিষ্ট অফিসার পদে নিযুক্ত হয়েছেন।

মহিমা জানিয়েছেন যে শৈশব থেকেই তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যোগদানের স্বপ্ন দেখতেন এবং এটি তার কঠোর পরিশ্রমের ফল স্বরূপ যে আজ তিনি তার স্বপ্ন পূরণ করেছেন। বর্তমানে মহিমা প্রশিক্ষণ নিতে চলেছেন তারপর তিনি লেফটেন্যান্ট পদে যোগ দেবেন। মহিমা ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্রী এবং সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ক্ষেত্রে মেয়েদের জন্য সেনাবাহিনীর মাধ্যমে প্রত্যক্ষ প্রবেশের দুটি পথ এবং আটটি নিয়োগের কথা ছিল।

তবে এ জাতীয় একটি ছোট পোস্টের জন্য হাজারেরও বেশি ফর্ম ফিলআপ হয়েছে। এই হাজার হাজার মানুষের মধ্যে শর্টলিস্ট করা হয়েছিল এবং মহিমা পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার পর শীর্ষ স্থান অর্জন করেছেন। তার যোগদানের বিষয়টি মহিমা জানিয়েছেন যে 9 থেকে 13 ই জুন পর্যন্ত তিনি ব্যাঙ্গালুরুতে এসএসবি করবেন। করোনার কারণে তাদের অনেক সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছে।

সবাই এই নিয়ে বিচলিত হয়েছিল কিন্তু মহিমার স্বপ্নপূরণের আবেগ ছিল। এসএসবি তো সে একমাত্র মেয়ে এবং পরিবারের কোন সদস্য বা অন্য কোন ব্যক্তি ছিল না। মহিমাকে ফিট হওয়ার জন্য 42 দিন সময় দেওয়া হয়েছিল এবং দুই সপ্তাহের মধ্যে মহিমা নিজেকে পুরোপুরি ফিট করে, এতে অবশ্য তার বন্ধুরা তাকে অনেক সাহায্য করেছে।

মহিমা আরও বলেছিল যে দিন সে ভ্রশিকা তিয়াগির বক্তব্য শুনে ছিল সেদিন থেকে তার স্বপ্ন ছিল সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার। তিনি সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে পছন্দ করতেন কারণ এখানে প্রত্যেকে বিভিন্ন উপায়ে জীবন যাপন করার সুযোগ পায়। মহিমার নামটি খুব সক্রিয় মেয়েদের মধ্যে গণ্য করা হয় কারণ তিনি তার কলেজে একটি স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে পুরো চার বছর ধরে কাজ করেছেন।

প্রথম থেকে পড়াশোনার স্মার্ট মহিমা তার কলেজের পরীক্ষায়ও 90% নাম্বার অর্জন করতেন। এইভাবে আমাদের দেশের মেয়ে মহিমা লেফটেন্যান্ট হিসেবে সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে পুরো দেশকে গর্বিত করতে চলেছেন এবং দেশের সমস্ত মেয়েদেরকে অনুপ্রাণিত করতে যাচ্ছেন। তার সাফল্যের জন্য তাকে সমস্ত দেশের পক্ষ থেকে অনেক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।।

About Web Desk

Check Also

চোখে দেখতে পায় না,রেলওয়ে চাকরি দেবেনা বলে না করে দিয়েছিল,আজ নিজের চেষ্টায়, কঠোর পরিশ্রমে ভারতের প্রথম অন্ধ IAS অফিসার…… প্রাঞ্জল

IAS প্রাঞ্জল পাটিল এর success story: চোখ আমাদের শরীরের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। যে অন্ধ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *