Breaking News

ক্রিপ্টোকারেন্সি সাহায্যে আজ কোটিপতি তিন যুবক, আগে সাধারণ Job করত

ক্রিপ্টোকারেন্সি কথাটি এখন সারা বিশ্বের শিরোনামে রয়েছে। বর্তমানে, আমাদের দেশেও ক্রিপ্টোকারেন্সির ব্যবহার ক্রমাগত বেড়ে চলেছে। তবে ক্রিপ্টোকারেন্সি এখন সারা বিশ্বে আলোচনার বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছে। যেসব ভারতীয়রা এই ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ করেছেন, তারা খুব অল্প সময়ের মধ্যে নিজেদের একটি আলাদা পরিচয় তৈরি করেছেন।

শুধু তাই নয়, এই ক্রিপ্টোকারেন্সির কারণেই আজ তারা কোটি কোটি টাকার মালিক। আজ আমরা আপনাদেরকে এমনই তিনজন ভারতীয়দের কথা বলব। এনারা হলেন জয়ন্তী কনানি, সন্দীপ নেলওয়াল এবং অনুরাগ অর্জুন। এরা তিনজনেই ব্লকচেইন প্লাটফর্ম পলিগন -এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা। পলিগন, যাকে আগে ম্যাটিক বলা হত। এটিকে 2017 সালে স্থাপন করা হয়েছিল।

এটিকে ইথেরিয়াম ব্লকচেইনের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছিল। এটি হলো বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম ক্রিপ্টোকারেন্সি, যেটিকে ইথেরিয়ামের উচ্চ কর্ এবং ধীর লেনদেনে সমস্যা কাটিয়ে উঠার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। পলিগন প্ল্যাটফর্মের সাহায্যে ইথেরিয়াম স্কেলিংয়ের বিকাশ খুব সহজেই করা যায়। 2019 সালে ম্যাটিকের মার্কেট ক্যাপটি 26 মিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে 14 বিলিয়ন ডলার হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

এই ক্রিপ্টোকারেন্সিতে তারা প্রায় 4-5 শতাংশ পর্যন্ত অংশীদারি পেয়েছিলেন। সেই অনুযায়ী, তারা ভারতের প্রথম ক্রিপ্টো কোটিপতি হয়েছিলেন। কিন্তু ক্রিপ্টোর দুনিয়ায় তথ্য প্রমাণ করা খুবই কঠিন। সন্দীপ বলেছেন যে, ‘আমি মূলত দিল্লিতে থাকি’ আর আমার অন্য 2 সহ-প্রতিষ্ঠাতা মুম্বাই এবং আমেদাবাদে থাকে। আর আমাদের প্রধান কার্যালয়টি ব্যাঙ্গালোরে অবস্থিত এবং সন্দীপ আরও বলেছিলেন যে, তিনি ইঞ্জিনিয়ারিং এবং কম্পিউটার সাইন্স নিয়ে পড়াশোনা করেছেন।

তারপরে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে 2 বছর কাজও করেছেন। এরপরে এমবিএ পড়াশোনা শেষ করে আইটি বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছেন। এছাড়াও সন্দীপ ই-কমার্স সংস্থা ওয়েলসপুনেও কাজ করেছিলেন, যেখানে তিনি CTO ছিলেন। এরপরে সন্দীপ ফ্লিপকার্টের মত একটি ওয়েবসাইটেও কাজ করা শুরু করেছিলেন, কিন্তু এই ব্যবসাটিকে তিনি যতটা প্রসারিত করতে চেয়েছিলেন ততটা করতে পারেননি। এরপরে সন্দিপের জয়ন্তী কনানী এবং অনুরাগ অর্জুনের সাথে দেখা হয়।

এই জয়ন্তী কনানী ছিলেন একজন কম্পিউটার সায়েন্স ইঞ্জিনিয়ারিং। তিনি’housing.com’-এ একজন ডেটা সাইন্টিস্ট হিসেবে কাজ করতেন। অন্যদিকে অনুরাগ অর্জুন ছিলেন একজন সিরিয়াল উদ্যোক্তা। সেই সময় তিনি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মতো প্রতিষ্ঠানে ব্যবহৃত সফটওয়্যার IRIS এর সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতেন। তারপরে সন্দীপ উল্লেখ করেন যে, তাদের চতুর্থ সহ-প্রতিষ্ঠাতা হলেন মিহাইলো বেজেলিক। যিনি সার্বিয়ান থেকে এসেছেন। গত বছরই তিনি তাদের সাথে যোগ দিয়েছেন। এভাবেই তাদের ব্যবসা শুরু হওয়ার পর বাড়তে থাকে।।

About Web Desk

Check Also

দেশের জন্য শহীদ হয়েছেন ছেলে, বাবার চোখে জল নিয়ে শেষবারের মতো স্যালুট জানালেন ছেলেকে…

উত্তরাখণ্ডের বাগেশ্বরে অবস্থিত ত্রিশূল পর্বতে পর্বতারোহণ অভিযানের সময় নৌবাহিনী লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রজনীকান্ত যাদব একটি হিমবাহের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *