Breaking News

নববধূর ঘোমটা সরাতেই চক্ষু চড়কগাছ পরিবারের সদস্যের, সবার সামনে দিল দুই থাপ্পর…জানুন কি হয়েছিলো

উত্তরপ্রদেশের এক প্রেমিক মেয়ে সাজে তার প্রেমিকার বাড়ি পৌঁছেছিলেন। প্রেমিকের মনে হয়েছিল যে, এটি করে সে তার প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে পারবে এবং তাকে কেউ সন্দেহও করবেনা। কিন্তু মেয়ের পরিবারের লোকেরা তার পরিচয় জানতে পেরে গিয়েছিল, এবং তারপর যা হয়েছিল সেটা প্রেমিক কখনো কল্পনাও করতে পারেনি।

এই যুবক বেশ কয়েকদিন ধরেই তার প্রেমিকার সাথে দেখা করতে পারেননি। এমন পরিস্থিতিতে তিনি ভাবলেন যে, তার প্রেমিকার বাড়িতে গিয়েই তার সঙ্গে দেখা করে আসবেন। যেহেতু সেই মেয়েটি তার পরিবারের সাথেই থাকতো, তাই তার সাথে দেখা করা একটু কষ্টকর ছিল। তবে প্রেমিক সেই সমস্যাটিরও সমাধান করে ফেললেন। নিজেকে শাড়ি পড়া কনের মতো সাজিয়ে প্রেমিকার বাড়িতে গিয়ে পৌঁছলেন।

প্রেমিকার বাড়ির লোকেদেরকে সে বলল, তিনি তাদের মেয়ের বান্ধবী হয় এবং আরও বলল যে, সম্প্রতিই তিনি বিয়ে করেছেন, তাই সে তার মুখ ওড়না দিয়ে ঢেকে রেখেছে। বাড়ির লোকেরা তার কথা বিশ্বাস করে তাকে বাড়ির ভিতরে ঢুকতে দেয়। কিন্তু তার আচার-আচরণ দেখে বাড়ির লোকেরা তাকে সন্দেহ করতে শুরু করে। তারা তাকে মুখ থেকে ওড়না সরাতে বলেন। কিন্তু সে তার মুখ থেকে ওড়না সরাতে রাজি হননি।

এর ফলে বাড়ির লোকের সন্দেহ আরও গভীর হয়। এরপর মেয়েটির বাড়ির লোক জোর করেই তার ওড়নাটি সরিয়ে দেয়। ওড়না সরিয়ে ছেলেটিকে দেখে বাড়ির লোকেরা অবাক হয়ে যান। এরপর মেয়েটির বাড়ির লোক ছেলেটির কাছ থেকে ফোন ছিনিয়ে নিয়ে, তাকে এক চড় মারেন। এর ফলে ছেলেটি রেগে গিয়ে তার ফোনটি নিয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

এই সময় তাদের বাড়িতে কিছু স্থানীয় লোকজনেরা জড়ো হয়েছিলেন। সেখানে উপস্থিত একজন ব্যক্তি এই ঘটনাটির পুরো ভিডিও করেন। যা এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ভাইরালও হচ্ছে। এই ভিডিওতে প্রেমিককে লাল শাড়িতে দেখা যাচ্ছে। এর সাথে গলায় ভারী গহনাও পরেছেন। স্থানীয় লোকজনের ভয়ে মেয়েটির পরিবারের লোকজন ওই ছেলেটির বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেনি। কিন্তু এই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় দ্রুত ভাইরাল হয়েছে।।

About Web Desk

Check Also

বিস্ময়কর ঘটনা: ৪ হাত-পা ওয়ালা শিশু জন্ম নিতেই গ্রামে ঘটে গেলো এই ঘটনা!

প্রকৃতির এক অনন্য রূপ দেখা গেলো সোমবার বিহারের কাটিহার সদর হাসপাতালে। যেখানে চার হাত-পা বিশিষ্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published.