Breaking News

পেট্রোল পাম্পে কাজ করেন বাবা, নিজের বাড়ি বিক্রি করে, ছেলেকে লেখাপড়া করিয়ে IAS অফিসার তৈরি করলেন।

আপনার যদি কোন স্বপ্ন পূরণের ইচ্ছা থাকে, তবে পরিস্থিতি যাই হোক না কেন আপনি সেই স্বপ্ন পূরণ করতে পারবেন। আজ আমরা আপনাদেরকে দেশের অন্যতম তরুণ IAS অফিসার প্রদীপ সিংহের কথা বলতে চলেছি। যিনি প্রথমবারের প্রচেষ্টাতেই ইউপিএসসি পরীক্ষায় সফল হয়েছিলেন। তিনি ইউপিএসসি পরীক্ষায় 26 তম স্থান অর্জন করে তার নাম এবং তার পরিবারের নাম সারাদেশে উজ্জ্বল করেছিলেন।

তিনি বিহারের গোপালগঞ্জ জেলার বাসিন্দা ছিলেন। তাদের আর্থিক অবস্থা খুব একটা ভালো ছিল না। তার বাবা পেট্রোল পাম্প এ কাজ করতেন। তবে তিনি সন্তানদের লেখাপড়ার সম্পর্কে খুব সচেতন ছিলেন। প্রদীপ শৈশব কাল থেকেই লেখাপড়ায় খুব ভালো ছিলেন। তার লেখাপড়ার প্রতি কঠোর পরিশ্রম এবং উৎসাহ দেখে তার পরিবারের সদস্যরা খুব খুশি হয়েছিলেন।

তার বাবা নিশ্চিত ছিলেন যে, তার ছেলে একদিন বড় কিছু করবেই। প্রদীপ তার বাবার এই বিশ্বাসকে বাস্তবে রূপান্তরিত করেছিলেন। প্রদীপ স্নাতক পাস করে দিল্লিতে IAS কোচিং করতে চেয়েছিলেন। তবে বাড়ির আর্থিক অবস্থা দেখে, তিনি তাঁর ইচ্ছার কথা পরিবারের সদস্যদের কাছে জানানোর সাহস পাননি। তবে তার বাবা তার ইচ্ছার কথা জানতে পারার সাথে সাথেই,

নিজের বাড়ি বিক্রি করে সিভিল সার্ভিস এর প্রস্তুতির জন্য তাকে দিল্লিতে প্রেরণ করেছিলেন। প্রদীপ 2017 সালের জুন মাসে দিল্লিতে চলে যান। দিল্লিতে যাওয়ার পরে তিনি বাজিরাও কোচিংয়ে যোগ দিয়েছিলেন। এবং ইউপিএসসি পরীক্ষার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করা শুরু করেছিলেন। পরিবারের সদস্যদের উৎসাহ দেখে তিনি আরও অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন এবং আরো মন দিয়ে লেখাপড়া করা শুরু করেছিলেন।

তার এই কঠোর পরিশ্রমের ফলস্বরূপ তিনি প্রথমবারের প্রচেষ্টাতেই সারা ভারতের মধ্যে 93 তম স্থান অর্জন করে তার পিতার নাম এবং তার পরিবারের সদস্যদের নাম আলোকিত করেছিলেন। প্রদীপ 2018 সালে 93 তম স্থান অর্জন করে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেও ভালো নম্বর পাননি। তাই তিনি 2019 সালে আবার সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা দেন। এবার তিনি 26 তম স্থান অর্জন করে IAS পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন।

প্রদীপ তার একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন যে, বাড়ির আর্থিক অবস্থা যতই খারাপ হোক না কেন তার বাবা তাকে কোনোদিন অর্থ এবং শিক্ষার অভাব বুঝতে দেয়নি। সবসময় তাকে শুধু পড়াশোনায় মন দেওয়ার কথাই বলে এসেছেন। তার এই সাফল্য লক্ষ লক্ষ যুবক এবং তাদের বাবা-মাদের অনুপ্রেরণা হয়ে দাঁড়িয়েছে, যারা জীবনে কিছু করতে চান বা তাদের সন্তানদের কিছু করতে দেখতে চান।।

About Web Desk

Check Also

দিব্যা ভারতীর জীবনে ছিল অনেক গোপন কাহিনী, জেনেনিন কি হয়েছিল 5 এপ্রিল 1993 এর রাতে

অভিনেত্রী দিব্যা ভারতীর নাম শুনলেই এক মিষ্টি মুখের মেয়ের কথা মনে পড়ে। খুব অল্প বয়সেই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *