Breaking News

একটা ছোট অটোকে বিলাস বহুল বাড়ি বানালেন এই ২১ বছরের ছেলেটি, আনন্দ মাহিন্দ্রা দিল অনেক বড় অফার

আপনি নিশ্চয়ই অটো চড়েছেন। যদি কেউ আপনাকে বলে এখন অটো টিকে সে বিলাসবহুল বাড়ি হিসেবে ব্যবহার করবে তাহলে কি আপনি বিশ্বাস করবেন? কথাটা শুনলে অনেকটা স্বপ্নের মতন লাগছে তাইনা? কারণ এত ছোট অটোতে কিভাবে কেউ বিলাসবহুল বাড়ি বানাতে পারে? একটি অটো যার মধ্যে টিভি, মোবাইল চার্জার, এয়ার কন্ডিশনার, রান্নাঘর এবং বাথরুমের মত সুবিধা রয়েছে!

অত্যাধুনিক এই অটোটি নির্মাণ করেছেন চেন্নাইয়ের এক স্থপতি অরুণ প্রভু। তিনি একটি অটো কে পরিবর্তন করে এমনভাবে ডিজাইন করেছেন যাতে এটি বাড়ি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। লোকেরা তার এই সৃষ্টিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছে। তার ডিজাইনটি মাহেন্দ্র এন্ড মাহেন্দ্র গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্রা দ্বারা প্রশংসিত হয়েছে। অরুণ প্রভু পেশায় একজন আর্কিটেক ডিজাইনার।

সে অটোটিকে এমনভাবে ডিজাইন করেছে যাতে আপনি এক নজরে অবাক হয়ে যাবেন যে এটি সত্যিই কোন গাড়ি নাকি বিলাসবহুল বাড়ি। এই অটোতে অনেক সুযোগ সুবিধা রয়েছে এবং ঘরগুলি অনেক কিছু দিয়ে সজ্জিত। এই অটোটিতে এত বেশি জায়গা রয়েছে যাতে সহজেই রান্নাঘর বাথরুম বিছানা এবং সম্পূর্ণ বায়ু চলাচলের পুরো ব্যবস্থা রয়েছে। এই অটোতে জানলা, দরজা, ছাদ থেকে শুরু করে কাপড় শুকানোর জায়গা ইত্যাদি সমস্ত সুবিধা রয়েছে।

স্থপতি অরুণ প্রভু কেবল অটোকে একটি বিলাসবহুল ঘরে রূপান্তরিত করে নি পাশাপাশি এমন ভাবে এটিকে ডিজাইন করেছে যাতে যথাযথ সৌর প্যানেল ছাদে লাগানো যায়। কিছু প্রয়োজনীয় ব্যাটারি অত্যাবশ্যকীয় প্রয়োজনে এটিতে রাখা হয়েছে। যেগুলোর সাহায্যে চার্জ করা যাবে এবং এসি, লাইট এবং টোসস্টার ইত্যাদি চালাতে ব্যবহৃত হবে। জলের প্রয়োজন মেটাতে বাড়িতে একটি জল সংরক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে।

অরুণ প্রভু এই ডিজাইনের নাম দিয়েছে মোবাইল হোম যেটি তৈরি হয়েছে মাত্র 1 লাখ টাকায়। আনন্দ মাহিন্দ্রা তার পোস্টে জানিয়েছেন যে অরুণের মোবাইল হোম মাত্র 1 লাখ টাকায় প্রস্তুত হয়েছে। এই বাড়িটি ভবিষ্যতের হিসেবে দেখা যেতে পারে, যা সহজে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়। যাই হোক আপনাদের এই মোবাইল হোম কেমন লাগলো আমাদের কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন।।

About Web Desk

Check Also

বিস্ময়কর ঘটনা: ৪ হাত-পা ওয়ালা শিশু জন্ম নিতেই গ্রামে ঘটে গেলো এই ঘটনা!

প্রকৃতির এক অনন্য রূপ দেখা গেলো সোমবার বিহারের কাটিহার সদর হাসপাতালে। যেখানে চার হাত-পা বিশিষ্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published.